তারিখ : ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীর ব্যাপক গণসংযোগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে বিভিন্ন দলের ১৯ জন মনোনয়ন প্রত্যাশীর ব্যাপক গণসংযোগ
[ভালুকা ডট কম : ১৮ আগস্ট]
চলনবিল অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ) আসনে পুরো নির্বাচনী আমেজ শুরু হয়ে গেছে। এ আসনে এমপি পদে অধিষ্ঠিত হওয়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে বিভিন্ন দলের ১৯ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে নির্বাচনী এলাকা। প্রার্থীরা প্রতিদিন সভা-সমাবেশ ও গণসংযোগ করছেন। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান ও  ইসলামী জালছাগুলোতে প্রধান অতিথি হয়ে দান-খয়রাত করছেন। কর্মীরা একটু বিপদে পড়লেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। আসনটিতে আওয়ামীলীগ থেকে এক ডজন প্রার্থী এবং বিএনপি থেকে চারজন প্রার্থীসহ অন্যান্য দলের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী জোরে শোরে প্রচার-প্রচারণায় মাঠে নেমেছেন। স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকগণের ধারণা বড় দুই দলের তৃণমূল পর্যায়ে প্রকৃত জনপ্রিয় নেতা এবার মনোনয়ন না পেলে দলে গ্রপিংয়ের সৃষ্টি হতে পারে। আ’লীগ আসনটি ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর। অপরদিকে এ আসন পুনরুদ্ধারে বিএনপি মরিয়া।

আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- সিরাজগঞ্জ -৩  আসনের বর্তমান এমপি আলহাজ্ব গাজী ম.ম.আমজাদ হোসেন মিলন, সাবেক এমপি ক্লিন ইমেজের নেতা প্রয়াত ইসহাক হোসেন তালুকদারের ছেলে, সুযোগ্য উত্তরসুরি এ্যাডভোকেট ইমরুল হোসেন তালুকদার ইমন, সলঙ্গা থানা আ’লীগের উপদেষ্টা বিশিষ্ট শিল্পপতি এটিএম লুৎফর রহমান দিলু, রায়গঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা  কমান্ডার গাজী রেজাউল করিম তালুকদার, রায়গঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা বাস-মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল হাদি আলমাজী জিন্নাহ, রায়গঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার শরিফুল আলম শরীফ, রায়গঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক তরুণ নেতা আবুল কালাম আজাদ হৃদয়, হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্ট্রের ট্রাস্টি উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার রায়, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ সাখাওয়াত হোসেন সুইট, ঢাকা শিশু হাসপাতালের স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ডা. আব্দুল আজিজ, সলঙ্গা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি শিল্পপতি রায়হান গফুর ও  তাড়াশ উপজেলা আ’লীগের সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হক।

বিএনপি’র  দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- সাবেক এমপি, সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আলহাজ্ব আব্দুল মান্নান তালুকদার, গ্রাম সরকার বিষয়ক কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতা বিশিষ্ট শিল্পপতি সাইফুল ইসলাম শিশির, রায়গঞ্জ উপজেলা যুবদল সভাপতি ও  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ভিপি আয়নুল হক এবং  তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সভাপতি খন্দকার সেলিম জাহাঙ্গীর।

জাতীয় পার্টির (এরশাদ) একমাত্র মনোনয়ন প্রত্যাশী ঃ জাতীয় পার্টির রায়গঞ্জ উপজেলা শাখা সভাপতি অধ্যাপক জাকির হোসেন। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) এর একমাত্র মনোনয়ন প্রত্যাশী ঃ  জাসদ সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার সহ-সভাপতি অধ্যাপক আক্কাস আলী।

বাংলাদেশ মাইনরিটি জনতা পার্টি ঃ দলের একমাত্র প্রার্থী কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট সাবেক হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্ট্রের ট্রাষ্ট্রি চিত্তরঞ্জন কর। তিনি বৃহত্তর পাবনা জেলার হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্টের ট্রাষ্টি হিসাবে দায়িত্ব পালনকালীন এলাকার মন্দির, শ্বশানঘাট ও উপসনালয়ের উন্নয়ন করেছেন।

বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট (চরমোনাই পীর) ঃ দলের একমাত্র মনোনয়ন প্রত্যাশী আলহাজ্ব গাজী আইনুল হক। বাংলাদেশ ইসলামী শাসনতন্ত্র ঃ  দলের একমাত্র প্রার্থী আব্দুল মোমিন (মণি মাষ্টার)। তিনি সোনাইডাঙ্গা বিল নিয়ে আন্দোলনরত ভূমিহীনদের নেতা।

আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের অবস্থান ঃ
বর্তমান এমপি আমজাদ হোসেন মিলন ঃ ২০০৮ থেকে ২০১৪ সালের ৬ অক্টোবর পর্যন্ত রায়গঞ্জ-তাড়াশ ও সলঙ্গা থানার একাংশে আ’লীগের দৃঢ় নেতৃত্ব ছিলেন সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক হোসেন তালুকদার। ২০১৪ সালের ৬ অক্টোবর তার মৃত্যুর পর বীর মুক্তিযোদ্ধা তাড়াশ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গাজী ম.ম আমজাদ হোসেন মিলন উপনির্বাচনে মনোনয়ন পান। তিনি বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় এমপি নির্বাচিত হয়ে এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কাজ করেছেন।

সাবেক এমপি পুত্র এ্যাড. ইমরুল হোসেন তালুকদার ইমন ঃ নিজের ক্লিন ইমেজের পাশাপাশি অত্যন্ত জনপ্রিয় নেতা তার পিতা প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসহাক হোসেন তালুকদারের  জনসেবা,  উন্নয়ন কর্মকান্ড  ও ইমেজ কাজে লাগিয়ে মনোনয়ন পেতে ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তার সাথে রয়েছেন আ’লীগের প্রবীন ও তরুণ নেতাকর্মীরা।

শিল্পপতি এটিএম লুৎফর রহমান দিলু ঃ তিনি ২০০৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩ বার দলের নিকট মনোনয়ন প্রার্থনা করেছেন। তিনি এলাকার বেকারদের কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা করাসহ অনেক জনকল্যাণমূলক কাজ করেছেন।

মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রেজাউল করিম তালুকদার ঃ  স্থানীয় চান্দাইকোনা হাজী ওয়াহেদ-মরিয়ম অনার্স কলেজের ভূতপুর্ব অধ্যক্ষ। রায়গঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কমান্ডার হিসাবে ২বার দায়িত্ব পালন করেছেন।

আব্দুল হাদি আলমাজি জিন্নাহ ঃ উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি হিসাবে যথেষ্ট পরিচিত ও জনপ্রিয়। এবার দলের জন্য মাঠ পর্যায়ে তিনি ব্যাপক গণ সংযোগ করছেন।

খন্দকার শরীফ উল আলম শরীফ ঃ উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক। এলাকায় মুজিবসেনা নামে একটি সংগঠন গড়ে তুলে মাঠ পর্যায়ে তিনি নেমে আছেন দীর্ঘদিন ধরে। পরিবহন সেক্টরে বেশ কয়েকটি সংগঠনের সাথে জড়িত হয়েও তিনি  নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন।

ট্রাস্টি স্বপন কুমার রায় ঃ বর্তমান হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাষ্টি। এর আগেও তিনি ট্রাষ্টি ছিলেন। তিনি সাবেক সাধারণ সম্পাদক রায়গঞ্জ উপজেলা আ’লীগ। কৃষিবিদ সাখাওয়াত হোসেন সুইাট ঃ বাংলাদেশ কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে সারাদেশে তার কমবেশি ইমেজ বিদ্যমান।

আবুল কালাম আজাদ হৃদয় ঃ  শহীদ তিতুমীর কলেজের ছাত্রলীগ শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও রায়গঞ্জ উপজেলা আ’লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক। দলের প্রতি অনুগত ও বিশ্বস্ত। বয়সে তরুণ হলেও মাঠ পর্যায়ে তার জনপ্রিয়তা ক্রমবর্ধমান রয়েছে।

আব্দুল হক ঃ তাড়াশ উপজেলা চেয়ারম্যান ও তাড়াশ উপজেলা আ’লীগ সভাপতি। তাড়াশ এলাকায় তার বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। ডা. আব্দুল আজিজ রাজধানীতে একজন চিকিৎসক  ও সংগঠক হিসাবে তার বিশেষ পরিচিতি রয়েছে। এর আগেও তিনি দলীয় মনোনয়ন প্রার্থনা করেছিলেন। রায়হান গফুর ঃ সলঙ্গা থানা আ’লীগ সভাপতি ও একজন শিল্পপতি।

বিএনপি প্রার্থীদের অবস্থান ঃ
বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী আব্দুল মান্নান তালুকদার ঃ  ’৯১ থেকে পরপর ৪ বার একটানা এমপি নির্বাচিত হওয়ার সুবাদে এলাকার অনেক উন্নয়ন কাজ তিনি করতে সক্ষম হয়েছেন।  নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি আওয়ামীলীগ প্রার্থী মরহুম ইসহাক হোসেন তালুকদারের কাছে ৫৬ হাজার ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। এবারেও বিএনপির শক্তিশালী প্রার্থী হিসেবে ভোটের মাঠে নেমেছেন তিনি।

সাইফুল ইসলাম শিশির ঃ তিনি বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা, শিল্পপতি, বিএনপি’র গ্রাম সরকার বিষয়ক কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক ও গণস্বাস্থ্য এনজিও এবং গণস্বাস্থ্য টেক্সটাইল মিলস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তিনি প্রচার প্রচারণায় যথেষ্ট সোচ্চার রয়েছেন।

আয়নুল হক ঃ রায়গঞ্জ উপজেলা যুবদল সভাপতি ও  উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান। তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা তথা তার ক্লিন ইমেজ বিদ্যমান। দলের সংকট মূহুর্তে তিনি সদা সর্বদা মাঠে ময়দানে নেতাকর্মীদের পাশে থেকে কাজ করেছেন্ ।

খন্দকার সেলিম জাহাঙ্গীর ঃ তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সভাপতি। তিনি মনোনয়ন পাওয়ার জন্য লবিং গ্রুপিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

জামায়াত ঃ
জামায়াত নির্বাচনে অংশ গ্রহন করলে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন রায়গঞ্জ রায়গঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবিএম আব্দুস সাত্তার ও রায়গঞ্জ থানা জামায়াতের আমীর আলী মর্তুজা।

৬৪ সিরাজগঞ্জ-৩  আসন রায়গঞ্জ ও তাড়াশ উপজেলার ১৭ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এ আসনে তাড়াশ উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ২৮ হাজার। রায়গঞ্জ উপজেলার ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৩২ হাজার। মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬০ হাজার।  #



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

নির্বাচন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৪৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই