তারিখ : ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীরের ইন্তেকাল,ন্যাপ'র শোক

সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীরের ইন্তেকাল,বাংলাদেশ ন্যাপ'র শোক
[ভালুকা ডট কম : ১৬ জানুয়ারী]
প্রবীণ সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর ইন্তেকালে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ। বুধবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক শোকবার্তায় দলের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন ও দেশের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আমানুল্লাহ কবীরের অবদান জাতি শ্রদ্ধা সাথে স্মরণ করবে।

নেতৃদ্বয় বলেন,একজন কলম সৈনিক হিসাবে তিনি সকল সময়েই দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, পতাকা-মানচিত্র ও দেশের অক্ষন্ডতা রক্ষার পক্ষে কাজ করেছেন। আমানুল্লাহ কবীর যে রাজনীতির পক্ষে সারাজীবন কলম ধরেছেন জীবনের শেষ সময় সেই শক্তিই তাকে করেছে অবহেলা। যা অত্যন্ত দু:খজনক। তার ইন্তেকালে জাতির যে শূণ্যতা সৃষ্টি হয়েছে তা পূরনে বহু সময়ের প্রয়োজন হবে।

শোক বার্তায় নেতৃদ্বয় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। আমানুল্লাহ কবীরের ইন্তেকালে আরো গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর সভাপতি মো. শহীদুননবী ডাবলু ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। ডায়াবেটিস ও লিভারের নানা জটিলতা নিয়ে বেশ কিছু দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর বুধবার প্রথম প্রহরে তার মৃত্যু হয়েছে।

আমানুল্লাহ কবীরের ছেলে শাতিল কবীর বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১টার দিকে তার বাবার মৃত্যু ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। আমানুল্লাহ কবীরের বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। আমানুল্লাহ কবীর অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিনিউজের জ্যেষ্ঠ সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পাশাপাশি টেলিভিশনে আলোচনা অনুষ্ঠানগুলোতে নিয়মিত মুখ ছিলেন তিনি। অসুস্থতার কারণে দুই সপ্তাহ আগে শ্যামলীর ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল আমানুল্লাহ কবীরকে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে তাকে নেওয়া হয়েছিল ধানমণ্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালে। সেখান থেকে তাকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হয়।

১৯৪৭ সালের ২৪ জানুয়ারি জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন আমানুল্লাহ কবীর। অখন্ড বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনের পাশাপাশি এরশাদের সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনেও পেশাজীবীদের মধ্যে নেতৃত্বের কাতারে ছিলেন তিনি। সাড়ে চার দশকের সাংবাদিকতা জীবনে আমানুল্লাহ কবীর বাংলা দৈনিক আমার দেশের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন। তিনি ইংরেজি দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফের (বর্তমানে বিলুপ্ত) নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থায় (বাসস) ব্যবস্থাপনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিষ্ঠাকালীন নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন আমানুল্লাহ কবীর। তিনি এর আগে এস এম আলীর সম্পাদনায় প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের শুরুর দিকের বার্তা সম্পাদক ছিলেন। আমানুল্লাহ কবীর ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের জ্যেষ্ঠ সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। #





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

শোক সংবাদ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৭ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই