তারিখ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নওগাঁর বুক থেকে মুছে যেতে বসেছে ৬টি নদী

নওগাঁর বুক থেকে মুছে যেতে বসেছে ৬টি নদী
[ভালুকা ডট কম : ১২ মার্চ]
জলবায়ুর বিরুপ প্রভাব আর ফারাক্কার মরুকরনে নওগাঁর ৬টি নদী শুকিয়ে গেছে। শুস্ক মৌসুমের শুরুতে পানি শুন্য হয়ে পড়ায় বোরো সেচ নিয়ে শংকিত নদী তীরের হাজার হাজার কৃষক। অন্যদিকে দখল আর দুষন চলছে প্রতিযোগিতা করে। দিন দিন নওগাঁর বুক থেকে এই ৬টি ঐতিহ্যবাহী নদী হারিয়ে যেতে বসেছে।

জলশুন্য হয়ে পড়ায় বেকার হয়ে পড়েছে নদী নির্ভর শত শত মৎস্যজীবীরা। এলাকাবাসী বলছে সংরক্ষন ও পুন:খনন করা না হলে এ অঞ্চলের নদীগুলো হারিয়ে যাবে কালের গর্ভে। নওগাঁয় রয়েছে ছোট বড় ৬টি নদী। শুস্ক মৌসুমের শুরুতে আত্রাই, ছোট যমুনা, তুলসী গঙ্গা, নাগর, শিব, রাণীনদী (ফকিন্নী) ও পুনর্ভবা নামক এসব নদী শুকিয়ে পানি শুন্য হয়ে গেছে। এক সময় এসব নদী ছিল হাজার হাজার মানুষের জীবীকার উৎস । নদীর পানি ব্যবহার করে দু’ পাড়ের মানুষ ভরে তুলত তাদের ফসলের ক্ষেত।

এখন বছরে মাত্র তিন থেকে চার মাস পানি থাকে এসব নদীতে এরপর ধুধু বালুচরে পরিনত হয়। পানি শুন্য মরা নদীতে চলছে দখল ও দুষনের প্রতিযোগিতা। স্থানীয়রা বলছেন আগে এসব নদী অনেক উত্তাল ছিল। এখন সব স্মৃতি। নওগাঁর মৃত প্রায় ৬টি নদী কে দখল ও দুষনের হাত থেকে রক্ষার দাবীতে সম্প্রতি জেলা মানবাধিকার সংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগুলো তাদের নিয়মিত কর্মসুচী পালন করে আসছে।

জেলা মানবাধিকার সংগঠনের সাধারন সম্পাদক চন্দ্রন কুমার দেব বলেন, এখন যে অবস্থা আমাদের ছোট যমুনা এটাকে রক্ষা করতে সকলের উদ্যেগ নেওয়া দরকার। এদিকে অবৈধ দখল রোধ আর এসব মরা নদী রক্ষায় জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডে ও পৌর প্রশাসনের ব্যর্থ চেষ্টা নিয়ে রয়েছে নানা অভিযোগ। দখলদারদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ঠেকানো যাচ্ছে না।

নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুধাংসু কুমার সরকার বলেন নওগাঁর ৬টি নদী খনন কাজের প্রস্তাবনা প্লানিং কমিশনে দেওয়া আছে। প্রায় ১০০ কিলোমিটার নদী ড্রেজিং করার জন্য এ প্রকল্প ধরা হয়েছে। এদিকে নওগাঁর ছোট যমুনা নদী কালিতলা সুপারি পট্টিসহ বেশ কিছু নদীর পার সংলগ্ন অবৈধ দখল চলছে। এসব নিয়ে একাধিক মামলা করেও এ দখল থামানো যাচ্ছে না বলে জানালেন নওগাঁ পৌর মো: নজমুল হক সনি। শুকিয়ে যাওয়া নদীর দু’তীর দখল রোধে জেলা প্রশাসনের কার্যকর ভ’মিকা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান বলেন নদী দখল দূষন রোধ করতে প্রশাসন সচেষ্ট আছে। পরিবেশের বিরুপ প্রভাব মুক্ত রাখতে জেলার নদীগুলোকে সচল করা গেলে শস্য সমৃদ্ধ হয়ে উঠবে এ অঞ্চল এ অভিমত সব মহলের।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

পরিবেশ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৯ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই