তারিখ : ২৩ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ত্রিশালে অজ্ঞাত যুবতীর লাশের পরিচয় পাওয়া যায়নি

১৭ দিন পেরিয়ে গেলেও
ত্রিশালে অজ্ঞাত যুবতীর লাশের পরিচয় পাওয়া যায়নি
[ভালুকা ডট কম : ১২ মার্চ]
ময়মনসিংহের ত্রিশালে রেল লাইনের পাশে ডোবা থেকে অজ্ঞাত (২৫) যুবতীর লাশ  উদ্ধার করার ১৭ দিন পার হওয়ার পরও আজো অজ্ঞাত সেই যুবতির পরিচয় পাওয়া যায়নি। পরিচয় না পাওয়ায় এখনো হত্যার  কোন রহস্য বা ক্লো এখনো জানাযায়নি  বলছে পুলিশ।

ত্রিশাল থানা পুলিশ সুত্রে জানাযায়-গত ২৫ ফেব্রয়ারী  ভোরে উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের কামারিয়াকুল দক্ষিণপাড়া রেল লাইনের পাশের ডেবায় অজ্ঞাত যুবতীর লাশ দেখে এলাকাবাসী ত্রিশাল থানা পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে সকালে এএসপি ত্রিশাল সার্কেল ওসি তদন্ত,এস আই জাহাঙ্গীর ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্যে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এসময় যুবতীর মাথা ও শরীরে আঘাতের চিহ্ণ পাওয়া যায়।

ওসি তদন্ত কর্মকর্তা শেখ মাহমুদুর হোসেন বলেন, যুবতীর শরীরে আঘাতের চিহ্নে থাকায় হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে ধারনা করা হচ্ছে। এব্যাপারে পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামী দিয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ত্রিশাল থানা এস আই জাহাঙ্গীর জানান যুবতির পরিচয় না পাওয়ায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে অজ্ঞাত যুবতির লাশ  ময়মনসিংহ পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে ।অজ্ঞাত (২৫) যুবতির লাশ উদ্বার করার ১৭ দিন পার হওয়ার পর ও এখনো লাশটির পরিচয় না পাওয়া এ হত্যার কোন কারন জানাযায়নি। অজ্ঞাত যুবতির লাশের পরিচয় সনাক্ত হলে খুব সহজেই হত্যার ক্লু সম্পর্কে জানা যাবে এবং হত্যা কারীদের গ্রেপ্তার করা যাবে বলে ত্রিশাল থানার তদন্ত কর্মকর্তা জানান।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৭০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই