তারিখ : ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভোটারদের ভোটে অনিহা গণতন্ত্র হুমকির মুখে-মোস্তফা

ভোটারদের ভোটে অনিহা গণতন্ত্র হুমকির মুখে-মোস্তফা
[ভালুকা ডট কম : ২৩ মার্চ]
নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষের আর আগ্রহ নেই-এ বিষয়টি চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে আশংকাজনকভাবে ভোটার উপস্থিতি হ্রাস পাওয়ার ঘটনায় প্রমানিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব ও যুক্তফ্রন্টের শীর্ষনেতা এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি বলেন, ভোট কেন্দ্রে গিয়েও যখন জনগনের রায় প্রতিষ্ঠিত হয় না, তখন জনগন ক্রমান্বয়ে ভোট বিমুক হয়ে পড়ছে, যা স্বাধীনতার চেতনাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি প্রমান করছে আসলে চলমান উপজেলা নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হচ্ছে না। জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণমূলক হলেও বিতর্কের উর্ধ্বে ছিল না। কিন্তু উপজেলা নির্বাচন তাও হচ্ছে না। সব রাজনৈতিক দল অংশ নিচ্ছে না। সরকারী দলের নেতারাই তাদের প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী। ভোটাররা ভোট দিতে যাচ্ছে না, কোনো ভোট দেয়ার প্রতি তাদের আগ্রহ নেই? ভোটাররা যদি ভোট না দেন রাষ্ট্র ও গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়বে। শনিবার নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে মহান স্বাধীনতা দিবস ও ২৩ মার্চ ন্যাপ'র পক্ষ থেকে স্বাধীনতার ইসতেহার পাঠ দিবস স্মরণে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগর আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ হুট করে শুরু হয়নি। বাংলার জনগনকে মুক্তির স্বপ্ন দেখিয়ে মুক্তিযুদ্ধের দিকে ধাবিত করেছিলেন মওলানা ভাসানী। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে স্বাধীনতার চূড়ান্ত ডাক দেয়ার আহ্বান জানান মওলানা ভাসানী। সেই সময় ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসে পল্টনে মওলানা ভাসানীর পক্ষে তৎকালীন ন্যাপ সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান যাদু মিয়া পল্টন ময়দানে দলের পক্ষ থেকে স্বাধীনতার দাবী তুলে ধরেন এবং পাকিস্তানের পতাকা নামিয়ে ফেলেন। আজ ইতিহাস থেকে সেই ঘটনাও মুছে ফেলা হয়েছে। যা কখনোই শুভ লঙ্খন নয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসকে বিশেষ ব্যক্তি, গোষ্টি বা দলের একক অবদান দাবী করে প্রকারান্তরে যারা ইতহাসকে বিকৃতি করছে তাদের ইতিহাস ক্ষমা করবে না। জাতি হিসাবে আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা। আর শ্রেষ্ঠ অর্জনকে অর্জন যে মওলানা ভাসানীসহ যারাই জাতিকে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, তৈরী করেছেন তাদের সকলকে যথাযথভাবে সম্মান প্রদর্শন জাতি হিসাবে আমাদের কর্তব্য। তাদের যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হলে বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস নির্মান করতে হবে নির্মোহভাবে।

ন্যাপ ঢাকা মহানগর সভাপতি মো. শহীদুননবী ডাবলু'র সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন গণতান্ত্রিক ঐক্যের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম, এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, লেবার পার্টি মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ জনতা ফ্রন্ট সভাপতি মো. আবু আহাদ আল মামুন (দীপু মীর), ন্যাপ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ কামাল ভুইয়া, নগর সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. নজরুল ইসলাম, মহিলা সম্পাদিকা সুমি আক্তার শিল্পী, যুব ন্যাপ সমন্বয়কারী বাহাদুর শামিম আহমেদ পিন্টু প্রমুখ। #





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৫৮৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই