তারিখ : ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে সরকার কিছু ভাবছে না-আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে সরকার কিছু ভাবছে না-আইনমন্ত্রী
[ভালুকা ডট কম : ২১ জানুয়ারী]
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে সরকার কিছু ভাবছে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক।মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইন মন্ত্রী বলেছেন, বিচারিক আদালত এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ করার জন্য তাকে সাত বছর সাজা দিয়েছে। এখন তিনি সাজা ভোগ করছেন। আপিল বিভাগ তার জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন। সবই আদালতের ব্যাপার, আমাদেরকে কেন ভাবতে হবে যে আমরা খালেদা জিয়াকে নিয়ে কী করব?

বিএনপি খালেদা জিয়ার মামলাকে রাজনৈতিক বলছে, দলটি বলছে সরকারের ইচ্ছায় তিনি কারাবন্দি- এ বিষয়ে আনিসুল হক বলেন,আমার মনে হয় আপনাদেরও ভাবার সময় এসেছে যে, কোনটা রাজনৈতিক মামলা আর কোনটা নয়। কারণ হচ্ছে এই মামলার তথ্যাদি সবকিছু আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। মামলা ২০০৭-০৮ সালে করা হয়েছে। তখন শেখ হাসিনার সরকার ছিল না, তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিল। চার্জশিট দিয়েছে স্বাধীন দুর্নীতি দমন কমিশন। এরপর অন্ততপক্ষে তারা ২০ বার আপিল বিভাগে গেছে, প্রত্যকবার পরাজিত হয়েছে। এই মামলা চলতে পারে বলে আপিল বিভাগের রায় আছে। এরপর বিচারিক আদালতে মামলা চলেছে। শেষ যখন হওয়ার কথা তারা আদালতের বিরুদ্ধে অনাস্থা দিয়েছে। হাইকোর্ট ডিভিশন আবারও আদালত বদলে দিয়েছে। তারপরও এটাকে যদি কেউ রাজনৈতিক মামলা বলতে চায় তাহলে মুখে তারা বলতে পারেন কাগজে তারা প্রমাণ করতে পারবেন না।

চট্টগ্রামে শেখ হাসিনার ওপর হামলা মামলা ও সিপিবি সমাবেশে হামলার রায়ের বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন,দুটি রায়ের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিকটা হচ্ছে- চট্টগ্রামের ঘৃণীত অপরাধটা ১৯৮৮ সালে হয়েছে, ৩১ বছর পর এই বিচার সমাপ্ত হলো। সিপিবির বোমা হামলা ২০০১ সালে হয়েছে। এর মানে ১৯ বছর পর আমরা এর বিচার শেষ করতে পেরেছি। সন্তুষ্টি প্রথমেই যে অন্ততপক্ষে বিচারটি শেষ হয়েছে।

তিনি বলেন,আমরা এইটুকু বলতে পারি যে, এই দুটো বিচারের মাধ্যমে আবারও প্রমাণিত হলো অপরাধীরা কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, যার যতই ক্ষমতা থাকুক না কেন। হয়তো সাময়িকভাবে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে কিছুদিনের জন্য আইনের ঊর্ধ্বে আছেন বলে একটা ইল্যুশনের মধ্যে থাকতে পারেন অপরাধীরা। শেষ পর্যন্ত তাদের আইনের আওতায় আসতেই হবে।

দু’টি মামলার বিচার হতে এতদিন লাগল কেন- জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন,এই মামলাগুলো যাতে বিচারের মুখ না দেখে সেই ব্যবস্থা করেছিল বিএনপি সরকার। তারপর শেখ হাসিনা ২০০৯ সালে সরকার গঠন করলে তখন থেকে আবার তদন্ত শুরু হয়। তখন কতগুলো মামলা পুলিশের হাতে ছিল, সেগুলো হিসাব করে দেখেন- সবগুলো তদন্ত করে শেষ পর্যন্ত পৌঁছেছে সে জন্য আমি তাদের সাধুবাদ জানাই। তখন আবার নতুন করে সাক্ষীসাবুদ দেয়ার ব্যবস্থা ও তদন্ত করে এইসব মামলাগুলো চালানো, সে জন্য একটু দেরি হয়েছে।

আপনার কি মনে হয় দেশে সবার জন্য সমান আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত আছে- এ বিষয়ে তিনি বলেন,হ্যাঁ আছে, সবার জন্যই আছে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, আপনাদের এটাও মানতে হবে। যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি যেটা ছিল সেটা যথেষ্ট বছর যাবত ছিল। সেটার মূলোৎপাটন এত তাড়াতাড়ি করা যায় না।আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে পারি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে শেখ হাসিনার সরকারের মাধ্যমে।

এটা অপরাধীদের জন্য কোনো মেসেজ কিনা- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন,আমি তো সেটা আগেই দিয়েছি। বাংলাদেশে এখন বিচারহীনতার সংস্কৃতি গত। কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়, আইনের মাধ্যমে সব অপরাধের বিচার হবে।

তেজগাঁও রেজিস্ট্রি অফিসে বারবার দুর্ঘটনা হচ্ছে- সেই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আনিসুল হক বলেন,সে জন্যই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, এ রকমভাবে যাতে আর না ঘটে। এই ঘটনা কেন ঘটছে বারবার, এটার মূলটা বের বরার জন্য আমরা তদন্ত করছি।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অন্যান্য বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৩১ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই