তারিখ : ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

সোমেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি বেড়িবাঁধ ভাঙনের আশঙ্কা

সোমেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি বেড়িবাঁধ ভাঙনের আশঙ্কা
[ভালুকা ডট কম : ২৮ জুন]
নেত্রকোনাস্থ দুর্গাপুর উপজেলার সোমেশ্বরী নদীতে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে গাঁওকান্দিয়া ইউনিয়নের কালিকাবর বেড়িবাঁধ ভেঙে প্রায় কয়েকশ ঘর-বাড়ি নদী গর্ভে বিলীনের শঙ্কায় ভুগছেন স্থানীয়রা। ২৮ জুন শনিবার বিকেল ৪টার দিকে ভাঙন কবলিত এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। দুপুর ২টার দিকে ঐ বেড়িবাঁধের ফাটলধরা জায়গাটি ও আশপাশের ঝুঁকিপূর্ণ বাড়ি-ঘর পরিদর্শন করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তাব্যক্তিরা। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার ঐ ইউনিয়নের গাঁওকান্দিয়া গ্রামের মকিম আলী সরকারের বাড়ি থেকে দক্ষিন দিকে ইব্রাহীম মিয়ার বাড়ি পর্যন্ত নদীর বেড়িবাঁধের ১১শত ফুট রাস্তা সংলগ্ন ঘেষে গড়ে উঠা ঘর-বাড়ি চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। ঐ বেড়িবাঁধের মকিম সরকারের বাড়ির পাশে ঢলের স্রোতে নিচ দিয়ে বিশাল গর্ত তৈরী হচ্ছে। আর উপর থেকে বিশাল আকৃতির মাটির চাকা দপ দপ করে নদীতে ঢলে পড়ছে। নদীতে পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে আশপাশের বসতিদের শঙ্কা আর উৎকণ্ঠায় সময় পার করছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বেড়িবাঁধ রক্ষায় উপজেলা প্রশাসন ও উর্দ্ধতন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। ঐ জনপ্রতিনিধি নিজ উদ্যোগে একশত বাঁশ কেটে বাঁধের পাশে জমাট করেন। স্থানীয়দেরকে সাথে নিয়ে প্রাথমিক বাঁধ রক্ষায় তিনি কাজ করছেন বলেও জানা যায়।

এই বেড়িবাঁধটি ভেঙে গেলে এখানকার বেশক’টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দুটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা,একটি কমিউনিটি ক্লিনিক, গাঁওকান্দিয়া বাজার,ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় সহ অসংখ্য গুরুত্বপূর্ন স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। অনেক অসহায় পরিবার ভিটে বাড়ি হারানোর সম্ভাবনাও রয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা রহিত মিয়া,জাহাঙ্গীর ও অসংখ্য ভুক্তভোগী এ প্রতিবেদককে জানান, কালিকাবর বেড়িবাঁধটি রক্ষায় অনেকবার স্থানীয় এমপিদের দিয়ে পরিদর্শন করিয়েছি। সবাই কথা দেয় কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়না। এ বাঁধটি এখন এখানকার লোকজনের গলার কাটার মতো বিধে আছে। বর্তমান সরকারের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ আমাদের এ বেড়িবাঁধটি দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নেবেন এমনটাই আমাদের দাবী।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন জানান, সোমেশ্বরী নদীতে বন্যার পানি আসলেই গাঁওকানিদয়া ইউনিয়নের এ বেড়িবাঁধটি থেকে প্রায় ৫-৭ কিলো রাস্তার নদী ভাঙনের কবলে পড়ে। প্রায় দুইশতাধিক ঘর-বাড়ি চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। যেকোন সময় নদীতে এসব ঘর-বাড়ি ধসে যেতে পারে। আমি উপজেলা প্রশাসনকে এ বিষয়টি অবহিত করেছি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড নেত্রকোনা জেলার উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রহিদুল হোসেন খান জানান,কালিকাবর বেড়িবাঁধটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ইতিমধ্যে রিপোর্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাটিয়েছি। আশা করছি অচিরেই এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া যাবে।

বার্তা প্রেরক
মুখলেছুর রহমান হাবিব
নেত্রকোনা





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৮ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই