তারিখ : ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার

সংবাদ শিরোনাম

ভালুকার করোনা আপডেট

২৯ জুলাই ২০২০, বুধবার
আক্রান্ত
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ২৮০ জন
সুস্থ
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ২১৯ জন
মৃত্যু
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ৩ জন

বিস্তারিত বিষয়

নওগাঁয় যৌনকর্মীকে আশ্রয় দেওয়ায় অপরাধে অর্থদন্ড

নওগাঁয় যৌনকর্মীকে আশ্রয় দেওয়ায় অপরাধে বাড়ির মালিকের অর্থদন্ড
[ভালুকা ডট কম : ০৪ আগস্ট]
নওগাঁর রাণীনগরে দিনের বেলায় এক যৌনকর্মীকে বাড়িতে আশ্রয় দেওয়ার অপরাধে বাড়ির মালিকের ২শত টাকা অর্থদন্ড করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন। যৌনকর্মী নুপুর জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার রায়কালী ইউনিয়নের রায়কালী পোড়াপাড়া গ্রামের আজিজুল হকের মেয়ে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার একডালা ইউনিয়নের যাত্রাপুর গ্রামে। যাত্রাপুরগ্রামের মৃত-আলহাজ্ব আয়েরুল্লাহর ছেলে ফরহাদ আলী ফরু ওই যৌনকর্মীকে তার বাড়িতে আশ্রয় দেওয়ার অপরাধে নির্বাহী কর্মকর্তা তার এই অর্থদন্ড করেন।

ফরুর স্ত্রী জানান দীর্ঘদিন যাবত যাত্রাপুর পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তির মাধ্যমে নুপুর নামের ওই মেয়েকে জোরপূর্বক তার বাড়িতে এনে মেলামেশা করে আসছিলো। তারই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার বিকেলে ওই মেয়েকে এনে তার স্বামী ফরুর সহযোগিতায় তার বাড়িতে আশ্রয় দেয়। এই বিষয়ে সে একাধিকবার প্রতিবাদ করেও কোন ফল পায়নি। তারা তাদের ইচ্ছে মাফিক ওই মেয়েকে নিয়ে আসে এবং গান-বাজনা করে আনন্দ ফ’র্তি করে। শুধু পুলিশ সদস্যরাই নয় স্থানীয় আরো কিছু গন্যমান্য ব্যক্তিরাও এই মেয়ের কাছে আসতো। এতে করে প্রতিবেশিরাও একাধিকবার প্রতিবাদ করেও কোন ফল পায়নি বলেও তিনি জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই জানান স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী কতিপয় ব্যক্তিদের সহযোগিতায় ফরু অর্থের লোভে তার বাড়িকে অঘোষিত যৌন পল্লী তৈরি করেছে। বিশেষ করে ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যদের ভয়ে স্থানীয়রা কোন কিছুই করতে পারেনি। তারা ফরুর বাড়িতে ওই মেয়েকে এনে গান-বাজনা আর আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে পড়তো। আমরা একাধিকবার প্রতিবাদ করেও কোন লাভ পাই নাই।

যৌনকর্মী নুপুর জানান তিনি অভাবের তাড়নায় এই ব্যবসা করে আসছেন। যাত্রাপুরগ্রামের কতিপয় ব্যক্তির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তিনি এই কাজ করে আসছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এই বাড়িতে যাওয়া-আসা করছেন। কখনো ১দিন আবার কখনো একাধিক দিনও তিনি এই বাড়িতেই অবস্থান করেছেন বলেও জানান।

রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহুরুল হক বলেন বিষয়টি আগে আমার জানা ছিলো না। এখন জানলাম। যদি কোন পুলিশ সদস্য এই বিষয়ের সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন বলেন বিষয়টি জানার পর ওই বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় বাড়ির মালিকের অর্থদন্ড করেছি আর এই এলাকায় না আসার শর্তে মেয়েটিকে ছেড়ে দিয়েছি।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই