তারিখ : ২৭ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম


বিস্তারিত বিষয়

নান্দাইলে কালভার্টের মুখ বন্ধ করে পুকুরের পাড় নির্মাণ

নান্দাইলে রাস্তার কালভার্টের মুখ বন্ধ করে পুকুরের পাড় নির্মাণ
[ভালুকা ডট কম : ০৭ সেপ্টেম্বর]
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার সিংরইল ইউনিয়নে এলজিইডি রাস্তায় একটি কালভার্টের মুখ মাটি দিয়ে বন্ধ করে পুকুরের পাড় নির্মাণের চেষ্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে মাটি দিয়ে কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেওয়ায় রাস্তার অপর পাশের জলাবদ্ধতায় গাছপালা নষ্ট সহ বিভিন্ন সমস্যায় ভোগছে প্রায় ৩০/৩৫টি পরিবার। এ নিয়ে গ্রাম্য সালিশ দরবারেও কোন সুরাহা হচ্ছেনা।

সরজমিন পরিদর্শনে জানাগেছে, সিংরইল ইউনিয়নের কুচুরী গ্রামের কাজল মিয়ার বাড়ি সামনে দীর্ঘদিন ধরে সরকারি কালভার্টের একপাশর মাটি দিয়ে ভরাট করে রেখেছে একই গ্রামের মৃত মাহমুদ হোসেনের পুত্র আব্দুল কাদির ওরফে হলুদ মিয়া। পানি নিষ্কাশনের পথ না রেখে পুকুর নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট করার বিষয়ে স্থানীয় লোকজন বাধা নিষেধ দিলেও হলুদ মিয়া কোন কর্ণপাত করেননি। এছাড়া জলবদ্ধার শিকার নিজাম উদ্দিন, হবি মিয়া, আবুল কাশেম সহ বেশ কয়েকজন জানান,উক্ত কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেওয়া বাড়িতে পানি উঠা সহ গাছপালা ও কৃষি আবাদ নষ্ট হচ্ছে।

একপর্যায়ে গত দুই মাস পূর্বে স্থানীয় ব্যাক্তি সুজন ও রোকন মিয়া উক্ত কালভার্টের মুখের সামনে থেকে মাটি সরাতে ও নিজ বাড়ির বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের পথ বের করতে গেলে অভিযুক্ত আব্দুল কাদির ওরফে হলুদ মিয়া, মিজান মিয়া ও ইসরাফিল গংরা তাদের উপর হামলা চালায়। এতে সুজন ও রোকন মিয়া গুরুতর আহত হয়। তথাপিও ক্ষান্ত হয়নি হলুদ মিয়া উপুর্যপরি সুজন ও রোকন মিয়া  সহ বেশ কয়েকজনের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানি করে যাচ্ছে। শুধু তাই নয় হলুদ মিয়ার নামে জোরপূর্বক ভূমি দখলেরও অভিযোগ করেন সিরাজুল মিয়া নামে স্থানীয় মুরব্বী ব্যাক্তি। তিনি জানান, হলুদ মিয়াকে সাফকাওলা সোয়া ১৮শতাংশ জমি লিখে দিলেও সে আমার ৩৬ শতাংশ জমি জোরপূর্বক দখল করে রেখেছে। পরে প্রশাসনের সহায়তায় তা উদ্বার করেছি।

এ বিষয়ে সুজন মিয়া জানান,জনস্বার্থে কালভার্টের মুখ বন্ধ করার বিরুদ্ধে বাধা দেওয়ায় আমি সহ আমার ভাইয়ের এই অবস্থা। গ্রাম্য সালিশ দরবারেও কোন বিচার পাচ্ছিনা। এর শক্ত বিচার হওয়া উচিত।

অভিযুক্ত হলুদ মিয়া কালভার্টের মুখ বন্ধ করার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি পানি নিষ্কাশনের পথ রেখেই মাটি ফেলেছি। এতে দোষের কিছুই দেখিনা। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবহিত নই এবং কেউ আমাকে অবহিত করে নাই।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই