তারিখ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, শুক্রবার

সংবাদ শিরোনাম

ভালুকার করোনা আপডেট

২৯ জুলাই ২০২০, বুধবার
আক্রান্ত
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ২৮০ জন
সুস্থ
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ২১৯ জন
মৃত্যু
২৪ ঘন্টা মোট
০ জন ৩ জন

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকায় উথুরা থেকে মল্লিকবাড়ী ৫ কিমিঃ রাস্তার বেহাল দশা

ভালুকায় উথুরা মরচী মাদ্রাসা মোড় থেকে মল্লিকবাড়ী ৫ কিমিঃ রাস্তার বেহাল দশা! জনদুর্ভোগ চরমে
[ভালুকা ডট কম : ১৫ সেপ্টেম্বর]
ভালুকায় উপজেলার উথুরা থেকে তালুটিয়া হয়ে মরচী দাখিল মাদ্রাসা মোড় দিয়ে মল্লিকবাড়ী বাজারে যেতে পাচগাঁও হাজির বাজার পর্যন্ত ৫ কিমিঃ রাস্তা বর্ষাকালে অল্পবৃষ্টিতে গ্রামের ৪/৫ শ মানুষের প্রতিদিন চলাচলের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়।  মানুষের পায়ে হেটে যাবারও কোন উপায় থাকেনা।

এতে এলাকায় উৎপাদিত কৃষিপন্য, লেয়ার মুরগির ফার্মের ডিম, খাবার সদরে বিক্রি করতে ও আনতে প্রতিদিনই যাত্রায়াত করতে হয় মল্লিকবাড়ী বাজারে কিন্তু অল্পবৃষ্টিতে  পন্যসামগ্রী নিয়ে পাচগাঁও পর্যন্ত পায়ে হেটে যাবার উপায় থাকেনা ফলে সাধারন মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ পৌহাতে হচ্ছে। শিল্পনগরী ভালুকায় এমন রাস্তা প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নেই রয়েছে যাতে উন্নয়নের হাওয়া লাগেনি আজও। উথুরা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড মরচী গ্রাম। এ গ্রামের প্রায় সবগুলো রাস্তার দৃশ্য এমন বর্ষাকালে গ্রামের মানুষের ভালুকা সদরে যেতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

মরচী ব্লাড সোসাইটির পরিচালক মিনহাজ আহমেদ ভালুকা ডট কম কে বলেন, তালুটিয়া মোড় মরচী দাখিল মাদ্রাসা হয়ে পাচগাঁও হাজিরবাজার ৫কিমি: রাস্তার অংশ কাঁচা।  মল্লিকবাড়ী বাজারে যাবার একমাত্র রাস্তাটির এ ৫কিমিঃ অংশ পাকা করার জন্য এই পর্যন্ত স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যান,জনপ্রতিনিধি ও নেতারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। নির্বাচনের পর কাউকে খুজে পাওয়া যায় না। জন্মের পর থেকে দেখে আসছি রাস্তার ডিও-লেটার,মাপ-ঝোকের কাজ চলে আসছে কিন্তু বাস্তবে কোন উপকার এলাকাবাসী পায়নি। প্রতি ইউপি নির্বাচনের প্রচারনার সময় সব প্রার্থী বলে আপনারা এবার ভোট দিন,পাশ করেই রাস্তা পাকা করে দিব। বাস্তবে কিছুই হয়নি।

মরচী গ্রামের বেশ কয়েকজন মুরব্বী ও তরুন  সাধারন মানুষের সাথে বলে জেনেছি, তাদের দাবি জনপ্রতিনিধিদের কাছে  উথুরা তালুটিয়া মরচী দাখিল মাদ্রাসা মোড় হয়ে মল্লিকবাড়ী বাজার যেতে পাচগাঁও হাজিরবাজার পর্যন্ত ৫ কিমিঃ কাঁচা রাস্তাটি একটু বৃষ্টিতেই চলাচলের অনুউপযোগি হয়ে পড়ে। গ্রামে ৪/৫শ মানুষ প্রতিদিনই ব্যবসা, কৃষিপন্য, লেয়ার পোল্ট্রির খাবার আনতে পায়ে হেটে যেতে হয় তাতেও হাটু পর্যন্ত কাঁদা লাগে যায়। এলাকাবাসী দৃষ্টি আকর্ষন করেন ভালুকা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ যদি একটু নজর দিতেন তাহলে গ্রামের কয়েক'শ পরিবারের মানুষ জনদুর্ভোগ থেকে রেহাই পেতো।#




সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই