তারিখ : ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম


বিস্তারিত বিষয়

তজুমদ্দিনে বিয়ে বাড়িতে খাবারে নেশা মিশিয়ে চুরি

তজুমদ্দিনে বিয়ে বাড়িতে খাবারে নেশা মিশিয়ে স্বর্ণালংকার চুরি,হাসপাতালে ভর্তি-৬
[ভালুকা ডট কম : ২২ সেপ্টেম্বর]
ভোলার তজুমদ্দিনে বিয়ে বাড়িতে খাবারের সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে অচেতন করে স্বর্ণালংকার চুরি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অচেতন অবস্থায় ৬ জনকে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সুত্রে জানা যায়, উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের তোরাব আলী পাটওয়ারী বাড়ির জামাল উদ্দিন পাটওয়ারীর মেয়েকে বিয়ে দেন চরফ্যাশন উপজেলায়। সোমবারের মেয়ের শশুড়বাড়ির লোকজন আসলে দুপুরের খাবার শেষে মেয়েকে বিদায় দিতে সবাই যখন ব্যস্ত তখন দুষ্কৃতিকারীরা সুযোগমত খাবারে নিশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে দেয়। পরে রাতে সেই খাবার খেয়ে অচেতন হয়ে পড়লে রাত ১টার দিকে মুখোশ পড়ে সিদ কেটে অজ্ঞাতনামা চোরেরা ঘরের মহিলাদের সাথে ১০ ভরি স্বর্ণ, নগদ ৫০ হাজার টাকা ও ৬টি মোবাইল নেয় এবং আরো স্বর্ণের জন্য রাতে খাবার না খাওয়া আক্তারা বেগমের নিকট গেলে সে ডাক-চিৎকার দিলে পাশ্ববর্তী লোকজন আসলে চোররা পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা অচেতন ৬জনকে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করেন। তারা হলেন, জামাল পাটওয়ারী (৫৫), হাজী তছলিম (৫৫), মিলাদুন্নবী (৪২), রোজিনা (২৬), আকলিমা (২৯) ও সামিউল (৫)। তজুমদ্দিন থানার ওসি (তদন্ত) এনায়েত হোসেন জানান, ঘটনার তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার লিখিত অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  

তজুমদ্দিন হাসপাতালের আরএমও ডা. মোঃ হাসান শরীফ বলেন, দুইজনের জ্ঞান ফিরেনি। বাকী ৪ জনের জ্ঞান ফিরলেও পুরোপুরি সুস্থ্য হতে সময় লাগবে। তাদেরকে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাবারের সাথে মিশিয়ে খাওয়ানো হয়েছে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৬ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই