তারিখ : ২০ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার

সংবাদ শিরোনাম


বিস্তারিত বিষয়

গৌরীপুরে বন্ধ স্টেশনে ট্রেন থামছে ওটানামা করছে যাত্রী

গৌরীপুরে বন্ধ স্টেশনে ট্রেন থামছে টিকিট ছাড়াই ওটানামা করছে যাত্রী
[ভালুকা ডট কম : ২৬ সেপ্টেম্বর]
জনবল সংকটের কারণে বন্ধ হয়ে গেছে ময়মনসিংহের দুটি রেল স্টেশন। যদিও ওই দুটি স্টেশনে নিয়মিত ট্রেন থামছে। যাত্রী ও মালপত্র ওঠানামাও স্বাভাবিক রয়েছে। এ দুটি স্টেশন থেকে টিকিট ছাড়াই যাত্রী ওঠানামা করছেন। এতে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হারাচ্ছে রেল কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে টিকিট না থাকার সুযোগে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়া ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা তো আছেই। এ দুটি রেল স্টেশনে দ্রুত জনবল নিয়োগ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য স্থানীয়দের এখন জোড় দাবি উটেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জনবল সংকটের কারণে ২০০৯ সাল থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ-গৌরীপুর রেলপথের তারাকান্দা উপজেলার বিসকা রেল স্টেশনটি বন্ধ রয়েছে। একইভাবে ২০০৪ সাল থেকে বন্ধ রয়েছে ভৈরব-চট্টগ্রাম রেলপথের গৌরীপুর উপজেলার বোকাইনগর রেল স্টেশন। জনৈক এলাকাবাসী জানিয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে স্টেশন দুটির কার্যক্রম বন্ধ থাকায় প্রতিনিয়ত চুরি হচ্ছে রেলওয়ের মূল্যবান সম্পদ। অযত্নে নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকা মূল্যের জিনিসপত্র।

সম্প্রতি দুটি স্টেশন সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভবন ও সরঞ্জাম আছে পর্যাপ্ত। রক্ষণাবেক্ষণ না থাকায় রেলওয়ের ওই ভবনগুলোয় প্রতিদিন বসে মাদকসেবী ও জুয়াড়িদের আড্ডা। এ ছাড়া দুটি স্টেশনেই নিয়মিত লোকাল ট্রেন থামে। যাত্রীও ওঠানামা করে। কিন্তু টিকিট বিক্রি না হওয়ায় বাধ্য হয়েই টিকিট ছাড়া যাতায়াত করেন যাত্রীরা। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করে রেলওয়ের আনসারসহ একটি চক্র।

এদিকে তারাকান্দা উপজেলার বিসকা রেলওয়ে স্টেশনের কক্ষগুলোয় এখন তালা ঝুলছে। রেলের স্টাফদের আবাসিক ভবনগুলো অযত্ন-অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে। এখনো এ স্টেশনে জারিয়া, মোহনগঞ্জ, ভৈরবগামী ১৬টি ট্রেন থামে। প্রতিদিন শত শত যাত্রী বিসকা স্টেশন থেকে ময়মনসিংহ, গৌরীপুর, কিশোরগঞ্জ, ভৈরব, শ্যামগঞ্জ, পূর্বধলা, জারিয়া, নেত্রকোনা, মোহনগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন। দাপ্তরিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এ স্টেশন থেকে বিক্রি হয় না কোনো ট্রেনের টিকিট। যাত্রীরা বিনা টিকিটে ট্রেন ভ্রমণ করায় প্রতি বছর সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব হরাচ্ছে। আবার ট্রেনে উঠে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা বা টিকিট চেকারদের কাছে হয়রানির শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা। দিতে হচ্ছে দ্বিগুণের বেশি ভাড়া। জনবল সংকটের কারণে এ স্টেশনে রেলক্রসিং হয় না। ক্রসিংয়ের জন্য প্রতিটি ট্রেন প্রায় ১ ঘণ্টা গৌরীপুর রেলওয়ে জংশন বা শম্ভুগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে আটকে থাকতে হয়।

এ বিষয়ে গৌরীপুর রেল স্টেশন ইনচার্জ আব্দুর রাশিদ জানান, দুটো স্টেশনে লোকবল সংকটের জন্য কার্যক্রম চালানো সম্ভব হচ্ছে না। বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষ অবগত আছেন। ময়মনসিংহ রেলওয়ে স্টেশনের সুপারিনটেনডেন্ট জহুরুল ইসলাম জানান, লোকবল সংকটের কারণে বিসকা ও বোকাইনগন স্টেশন দীর্ঘদিন বন্ধ রয়েছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ লোকবল দিলে এই স্টেশনগুলো পুনরায় চালু করা  হবে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৯৫ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই