তারিখ : ২৪ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ঈদযাত্রা হয়ে উঠতে পারে শবযাত্রা

ভোগান্তি নিয়ে বাড়ি ফিরছেন মানুষ,ঈদযাত্রা হয়ে উঠতে পারে শবযাত্রা
[ভালুকা ডট কম : ১০ মে]
দেশে করোনাজনিত পরিস্থিতিতে সরকারি বিধিনিষেধের কারণে ট্রেন, দূরপাল্লার বাস, লঞ্চ এবং নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। পদ্মায় ফেরি ঘাটের প্রবেশ পথে পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে  ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রা ঠেকাতে।তিন দিন পর ঈদ-উল-ফিতর।

এ অবস্থায় বেপরোয়া মানুষের যে যেমন করে পারছে ছুটছে নিজ গ্রামের দিকে স্বজনদের সাথে ঈদ পালন করতে। সামর্থ্যবানরা ভাড়া করছেন প্রাইভেট কার-মাইক্রো বাস। নিম্নবিত্তরা যাচ্ছেন ট্রাক, পিকআপে গাদাগাদি করে। অনেকে আবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মোটরসাইকেলে চেপে রওয়ানা হয়েছেন। কোথাওবা বা দূরপাল্লার বাস চলছে পুলিশকে মানেজ করে বা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে মহাসড়ক এড়িয়ে আঞ্চলিক রাস্তা ধরে। এ ছাড়া, লেগুনা, ট্রাক কিংবা মোটরসাইকেলে চড়ে  দুই বা তিনগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে ছুটছেন। অনেকে পায়ে হেঁটেও দীর্ঘ পথ পাড়ি দিচ্ছেন। অনেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উত্তাল পদ্মা ও মেঘনা পাড়ি দিচ্ছেন ইঞ্জিনচালিত নৌকায় চেপে।

এদিকে, লঞ্চ ও ফেরি বন্ধ থাকায় সবচেয়ে ভোগান্তি নিয়ে বাড়ি ফিরছেন দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ। সোমবার ভোর থেকেই মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ভিড় করছেন ঘরমুখো হাজারো মানুষ। মাঝে-মধ্যে এম্বুলেন্স পারাপারের জন্য ফেরি ঘাটে ভিড়লেই হুমড়ি খেয়ে  উঠে পড়ছেন তারা। সকাল ১০টায় শিমুলিয়া ঘাট থেকে তিন সহস্রাধিক যাত্রী নিয়ে গাদাগাদি করে ফেরি যমুনা বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

আরিচা অফিসের বিআইডব্লিউটিসির ডিজিএম জিল্লুর রহমান জানান, দিনে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হলেও লাশবাহী ও অ্যাম্বুলেন্সসহ কিছু ছোট গাড়ি পারাপার করা হচ্ছে। তবে দুই আড়াই ঘণ্টার পর পর রজনী গন্ধ্যা, বনলতাসহ ছোট ৪টি ফেরি দিয়ে পারাপার করা হচ্ছে। ঘাটে ঈদে বাড়ি ফেরা যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়ের কারণে সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। যাত্রীরা ঘাটে এসেই ফেরিতে উঠে পড়ছেন। কোনও বাধা নিশেধ মানছেন না তারা। অ্যাম্বুলেন্স ও লাশের গাড়ি ফেরিতে ওঠার আগেই যাত্রীরা ফেরিতে উঠে পড়ছে। গাড়ি বা অ্যাম্বুলেন্স নেওয়ার স্থান টুকু ফেরিতে থাকছে না।

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, মার্কেটে, রাস্তায়, ফেরিতে মানুষের  ভিড় করোনা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটাতে পারে। এভাবে ‘ঈদযাত্রা হয়ে উঠতে পারে শবযাত্রা।’রোববার আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির টেলিমেডিসিন সেবা উদ্বোধনকালে (ভার্চ্যুয়ালি) শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এখন ঈদ উপলক্ষে মানুষের গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার উন্মাদনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। পাশাপাশি ঈদের কেনাকাটা করতে গিয়েও প্রচুর ভিড় করছে মানুষ। তাদের মধ্যে আবার অনেকেই মাস্ক পরছেন না। কিছু ক্ষেত্রে নিজেরা পরলেও সঙ্গে থাকা বাচ্চাদের মাস্ক পরাচ্ছেন না। ফলে সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। অনেকের মৃত্যু হচ্ছে। সে কারণেই সবাইকে সতর্ক হতে হবে।

তিনি আরও বলেন,ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। ঈদে বাড়ি যাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কেননা যাত্রাপথে মানুষের ভিড় করোনা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটাতে পারে। ঈদযাত্রা হয়ে উঠতে পারে শবযাত্রা। কিন্তু সেটা আমাদের কারোরই কাম্য নয়। তাই নিজেদের সংযত করতে হবে বাড়ি যাওয়া এবং কেনাকাটা থেকে বিরত রাখতে হবে।

প্রতিবেশী দেশ ভারতে করোনা মহামারির ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে দীপু মনি বলেন,পাশের দেশ ভারতে করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। প্রতিদিন অনেক মানুষ মারা যাচ্ছে। ভারত পার্শ্ববর্তী দেশ হওয়ায় আপনাদের আরও বেশি সতর্ক হতে হবে। এ সময় যেমন চিকিৎসার সংকট দেখা দেয় তেমনি হাসপাতালেও বেড ও সেবার অপ্রতুলতা তৈরি হয়। তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে হবে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

জীবন যাত্রা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩১১ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই