তারিখ : ২৪ অক্টোবর ২০২১, রবিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নান্দাইলে শিশু ধর্ষণ চেষ্টা গ্রেফতার হয়নি আসামি

নান্দাইলে শিশু ধর্ষণ চেষ্টা গ্রেফতার হয়নি আসামি শিশুর শারীরিক অবস্থার অবনতি
[ভালুকা ডট কম : ২৫ সপ্টেম্বের]
ময়মনসিংহের নান্দাইলে চলতি মাসের ৫ সেপ্টেম্বর ধর্ষণ চেষ্টার শিকার আট বছরের শিশুরটির দিনদিন শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটছে। গত ১৩ সেপ্টেম্বর ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে শিশুর বাবা বাদী হয়ে এক মাত্র আসামি নুরুল ইসলাম মাষ্টার (৬০)কে আসামি করে নান্দাইল মডেল থানায়  লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। ১২ দিন পার  হলেও আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, ১৪ সেপ্টেম্বর পুলিশের উপস্থিতিতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডাক্তারি চেক-আপ সম্পন্ন হয়। সে দিনেই কিছু ঔষধ পত্র লিখে বাড়িতে দেওয়া হয় শিশুটিকে। এরপর থেকে আস্তে আস্তে শারিরীক অবস্থার অবনতি হতে থাকে শিশুটির। শিশুটির বাবা বাধ্য হয়ে গত ১৯ সেপ্টেম্বর নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। সেখানে প্রয়োজনীয় পরিক্ষা নিরিক্ষার পর চিকিৎসক জানায় শিশুটির প্রস্রাবের রাস্তায় ইনফেকশন হয়ে গেছে। প্রয়োজনীয় ঔষধ পত্র লিখে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। ঔষধ সেবন অবস্থায় কোন উন্নতি না হয়ে বরং আরও অবনতি হতে থাকলে গত ২৩ সেপ্টেম্বর আবারও নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে তার পরিবার। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে ভর্তি দেয় । সেখানে দুইদিন চিকিৎসা শেষে তার শারিরীক অবস্থার তেমন উন্নতি না হওয়ায় ২৫ সেপ্টেম্বর শনিবার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে দায়িত্বরত চিকিৎসক।

শিশুটির বাবা শনিবার সকালে জানায়, ঘটনার পর থেকে তার শরীরে জ্বর ছিল, এখন জ্বর বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া সে প্রস্রাব করতে পারছে না। আমি প্রশাসন সহ দেশবাসীর কাছে ন্যায় বিচার আশা করি। আসামি পক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় তারা আমাকে  মাদক সেবন ও মাদক  বিক্রির অপবাদ দিচ্ছে। এতো দিনে আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এদিকে মামলার তদন্ত কাজে নিয়োজিত নান্দাইল মডেল থানার এসআই মোঃ রুবেল মিয়া জানান, আসামি বিভিন্ন যায়গায় স্থান পরিবর্তন করছে। তাকে গ্রেফতারে প্রশাসন সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এবিষয়ে গৌরিপুর সার্কেল (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আসামী তার ব্যবহৃত ফোন বন্ধ রেখেছে। তাকে গ্রেফতার করার জন্য বিভিন্ন স্থানে সোর্স নিয়োজিত রয়েছেন। আশা করছি খুব দ্রুতই গ্রেফতার হবে।

উল্লেখ্য যে, গত ৫ সেপ্টেম্বর উপজেলার আচারগাঁও ইউনিয়নের সিংদই গ্রামে শিশুটির প্রতিবেশী সম্পর্কে এক স্কুল শিক্ষক দাদা আমড়া খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে নিজের খালি ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টা করে। বেশ কয়েকদিন মিমাংসার চেষ্টা করেও সফল না হওয়ায়। বিষয়টি পুলিশের নজরে আসলে তারা লিখিত অভিযোগ নেন। #



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১৩২৪ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই