তারিখ : ৩০ মে ২০২০, শনিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

ভালুকার মোহাম্মদীয়া হাসপাতালে আবারো এক নারীর মৃত্যু

ভালুকার মোহাম্মদীয়া হাসপাতালে আবারো এক নারীর মৃত্যু
[ভালুকা ডট কম : ২৫ ফেব্রুয়ারী]
ভালুকা পৌরএলাকার সালাউদ্দিন প্লাজায় অবস্থিত মোহাম্মদীয়া মডেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে ভুল চিকিৎসায় দুই সপ্তাহের ব্যবধানে আবারো এক নারী মিল শ্রমিকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে । নিহত ইসরাত জাহান (৩৪) ভালুকা উপজেলার মাস্টারবাড়ি স্কয়ার ফ্যাশনের শ্রমিক ও পাশের ত্রিশাল উপজেলার কাঠাল বিল বোকাপাড়া গ্রামের আতাউল হকের স্ত্রী। তাদের ইরফান নামে ৮ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, ত্রিশাল উপজেলার কাঠাল বিল বোকাপাড়ার আতাউল হকের স্ত্রী ভালুকা উপজেলার মাস্টারবাড়ি স্কয়ার ফ্যাশনের শ্রমিক তিন মাসের অন্তসত্বা ইসরাত জাহানের পেটে ব্যাথা উঠলে ২০ ফেব্রুয়ারী দুপুরে ভালুকা পৌরএলাকার সালাউদ্দিন প্লাজায় অবস্থিত মোহাম্মদীয়া মডেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে পরীক্ষা নিরিক্ষা করে রোগীর লোকদের জানান যে, রোগীর পেটের বাচ্চা মারা গেছে এখনই ডিএনসি করে বাচ্চা বের করতে হবে। পরে ৭ হাজার টাকার চুক্তিতে ওইদিন রাত সাড়ে ৯ টায় ভালুকা হাসপাতালের গাইনী ডাক্তার ও ক্লিনিকের মালিক আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী রোকাইয়া আক্তার ইসরাত জাহানকে অজ্ঞান করে ডিএনসি করে মৃত বাচ্চা প্রসব করান।

নিহতের স্বামী আতাউল হক জানান, ক্লিনিকে একদিন রাখার পরও তার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখা দিলে আমার অনুপস্থিতেই রোগীকে তড়িগড়ি করে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ তাদের অ্যাম্বোলেন্সের মাধ্যমে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। পরে সংবাদ পেয়ে ক্লিনিকে গিয়ে আমার স্বশুর হালিম উদ্দিন অ্যাম্বোলেন্সে চড়ে আমার স্ত্রীকে নিয়ে হাসপাতালে যান। পরে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ২২ ফেব্রুয়ারী বিকেলে ইসরাত জাহান মারা যান এবং ২৩ ফেব্রুয়ারী সকালে তাকে পরিবারিক গোরস্তানে দাফন করা হয়।

তিনি আরো জানান, ময়মনসিংহ হাসপাতালে নেয়ার পর পরীক্ষা করে আমাদের জানানো হয় যে, ডিএনসি করার সময় জরায়ূর মারাত্মক ক্ষতি করা হয় এবং খাদ্যনালী ছিড়ে যায়। এই কারণে রক্তক্ষরণও বন্ধ না হওয়ায় রক্ত শূণ্যতা হয়ে আমার স্ত্রী মারা যান। মঙ্গলবার বাড়িতে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। মিলাদ শেষে পরিবারের সদস্যেদের সাথে কথা বলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।

এ ব্যাপারে জানতে ডাক্তার রোকাইয়ার মোবাইল নম্বরে ফোন দিলে তিনি জানান, রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় আমি তাকে ময়মনসিংহ সরকারী হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছি।

ভালুকা ৫০ শয্যা সরকারী হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আবুল বাশার জানান, এ ব্যাপারে নিহতের পরিবার যদি মামলা করেন, তবে আমি অভিযুক্ত ডাক্তার ও ক্লিনিকের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিতে পারি।

ময়মনসিংহের সিভিল সার্জন ডাক্তার মশিউল আলম জানান, নিহতের পরিবার যদি অভিযোগ করেন তবে, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, উপজেলার পানিহাদি গ্রামের সিঙ্গাপুর প্রবাসি মনসুর আলীর স্ত্রী শারমিন আক্তারকে ২ ফেব্রুয়ারী সকালে প্রসব ব্যাথা উঠলে তাকে ভালুকা পৌরসদরে সালাউদ্দিন  প্লাজায় অবস্থিত মোহাম্মদীয়া মডেল হাসপাতালে ডাক্তার রোকাইয়ার মাধ্যমে সিজারিয়ান অপারেশনের পরে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ১১ ফেব্রুয়ারী রাতে চিকিৎসাধিন অবস্থাই ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শারমিন মারা যান।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২৬০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই