তারিখ : ১৬ জুন ২০২৪, রবিবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

মনপুরায় মৎস্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ

মনপুরায় জেলেদেরকে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ মৎস্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে
[ভালুকা ডট কম : ০৫ মে]
ভোলার মনপুরায় জলদস্যু স্টাইলে জেলেদেরকে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে মৎস্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। মেঘনায় মাছ ধরে বিক্রি করে আসার সময় দেশিয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত ৩ টি স্পীড বোট যোগে এসে জেলেদের মাছধরা ট্রলারে উঠে হাত-পা বেঁধে মারধর করে। এসময় জেলেদের সাথে থাকা মাছ বিক্রি করা নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয় ওই মৎস্য কর্মকর্তারা। উক্ত ঘটনায় মারধরের স্বীকার জেলেরা বাদী হয়ে মনপুরা থানায় অভিযোগ করেন।

শনিবার (৪ মে) দুপুর আড়াই টায় উপজেলার ১ নং মনপুরা ইউনিয়নের আন্দিরপাড় সংলগ্ন মেঘনা নদীতে এই ঘটনা ঘটে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১ নং মনপুরা ইউনিয়নের বিপ্লব মাঝি ও নাইম মাঝির মাছধরা নৌকা দুটি মেঘনায় ইলিশ মাছ ধরে নোয়াখালির চেয়ারম্যান ঘাটে বিক্রি করে আসছিলো। এসময় দেশিয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ৩ টি স্পীড বোট নিয়ে উপজেলা মৎস্য অফিসের মেরিন ফিসারিজ কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসানের নের্তৃত্বে একদল মৎস্য কর্মকর্তা জেলেদেরকে ধাওয়া করে। পরে তারা জেলেদের নৌকায় উঠে জেলেদের হাত পা বেঁধে লোহার রড ও লাঠিসোটা দিয়ে এলাপাতারি মারধর করে জখম করে। এসময় জেলেদের সাথে থাকা মাছ বিক্রি করা নগদ ৪৩,৫৮০ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এবং এবিষয়ে কাউকে জানাজানি বা বারাবারি করলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে উপজেলার সোনার চর নামক স্থানে জেলেদেরকে নামিয়ে দিয়ে চলে যায় । পরে স্থানীরা জেলেদেরকে উদ্ধার করে মনপুরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। পরে উক্ত মারধর ও টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় জেলেরা বাদী হয়ে মনপুরা থানায় অভিযোগ করেন।

জানা যায়, বিভিন্ন উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত এই যৌথ টিমে আরও ছিলেন, ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলা মৎস্য অফিসার মোঃ আল আমিন, মাদারীপুর জেলা মৎস্য অফিসের সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আসলাম হোসেন, চাঁদপুর মৎস্য অফিসের মোঃ রিয়াদ হাসান, চাঁদপুর অফিসের ক্ষেত্র সহকারি আশরাফুল ইসলাম ও জসিম হোসেন, নরসিংদী মৎস্য অফিসের ইসহাক আলী, মোঃ শুভ ও মোঃ সুজন।

এব্যাপারে থানায় অভিযোগকারি বিপ্লব মাঝী বলেন, মনপুরার মৎস্য কর্মকর্তারা অভিযানের নামে একাধিকবার আমাদেরকে মারধর, টাকা ছিনতাই ও জিম্মি করে টাকা আদায় করেছে। থানায় বহুবার অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাইনি। এবারও আমাদের সাথে একই ঘটনা ঘটেছে। তদন্ত সাপেক্ষে উক্ত ঘটনার সুষ্টু বিচার চাই আমরা।

অভিযোগ অস্বীকার করে মনপুরা মেরিন ফিসারিজ কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান জানান, আমাদের জেলা অফিসের নির্দেষে বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে মেঘনায় একটি যৌথ টিম অভিযান পরিচালনা করে। আমি তাদের সাথে ছিলাম না। এবং এব্যাপারে তেমন কিছুই জানি না।

এব্যাপারে মনপুরা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ জহিরুল ইসলাম জানান, মেঘনায় জেলেদেরকে মারধরের অভিযোগ পেয়েছি। অনুসন্ধান পূর্বক মৎস্য বিভাগীয় উচ্চপদস্ত কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।#



সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

ভালুকার বাইরে বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ৯৩৯০ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই